Breaking News
recent

মৃত ব্যক্তিকে কবরে রাখা না হলে কি তার সুওয়াল জওয়াব ও আজাব শুরু হয় না?

Image result for আখেরাত picture
প্রশ্ন
বরাবর,
মুফতি সাহেব দাঃ বাঃ
বিষয়ঃ কবরে প্রশ্নোত্তর প্রসঙ্গে,
আমার প্রশ্ন হল,
(ক) মানুষ ইন্তেকালের পর তার শওয়াল জওয়াব কখন করা হয়?
ইন্তেকালের সাথে সাথেই নাকি কবরে রাখার পর? যদি কবরে রাখার পর করা হয়, তাহলে প্রশ্ন জাগে অনেকর তো কবর দেয়া হয় না, যেমন পানিতে ভেসে গেল,দেহ মেডিকেলে দান করল ইত্যাদি? এক্ষেত্রে কি তাদেরকে প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়না?
(খ) কবরে যে আযাব হবে, তা কখন থেকে আড়াম্ভ হবে? আর তা মানুষের দেহের উপর হবে? নাকি রুহের উপর? এব্যপারে কোন নস আছে কি? বিস্তারিত জানিয়ে বাধিত করবেন।
নিবেদক
মোঃ মুফিদুল ইসলাম
মিরপুর, ঢাকা -১২১৬
উত্তর
بسم الله الرحمن الرحيم
এর জবাব বুঝতে হলে আপনাকে প্রথমে আলমে বরযখ বুঝতে হবে।
আলমে বরযখ তথা বরযখী জীবন বলা হয়, মৃত্যুর পর থেকে কিয়ামত পর্যন্তের সময়কে বলা হয়। বরযখ মানে হল পর্দা। যেহেতু দুনিয়ার জীবন থেকে উক্ত ব্যক্তির হালাতটি পর্দাবৃত হয়ে যায় এর মাধ্যমে এ কারনে এটিকে বরযখী জীবন বলা হয়।
আর বরযখ কোন বিশেষ স্থানের নাম নয়। বরং যেখানে ব্যক্তির দেহ থাকবে সেটিই হল উক্ত ব্যক্তির বরযখী জীবনের স্থান বা কবর। কবরের মূল অর্থ হল মাটির ঘর। মূলত কবরের জীবন বলে মাটির নিচে দাফিত অবস্থাই উদ্দেশ্য নয়, বরং মৃত্যুর পর ব্যক্তির দেহ যেখানেই থাকবে সেখান থেকেই তার কবরের জীবন বা বরযখী জীবনের সূচনা হয়ে যায়।
সেই হিসেবে ব্যক্তির প্রাণ যেখান থেকেই বরযখী জীবনে প্রবেশ করে তখনই তার সুওয়াল জওয়াব হয়ে থাকে। কবরে থাকলে কবরে হয়, পানিতে থাকলে পানিতে হবে। মেডিক্যালে থাকলে মেডিকেলে হবে। যেখানে থাকবে, সেখানেই তার সু্ওয়াল জবাব হবে।
البَرْزَخُ: مَا بَيْنَ كُلِّ شَيْئَيْنِ، وَفِي الصِّحَاحِ: الْحَاجِزُ بَيْنَ الشَّيْئَيْنِ. والبَرْزَخُ: مَا بَيْنَ الدُّنْيَا وَالْآخِرَةِ قَبْلَ الْحَشْرِ مِنْ وَقْتِ الْمَوْتِ إِلى الْبَعْثِ، فَمَنْ مَاتَ فَقَدْ دَخَلَ البَرْزَخَ.….. الخ وَقَالَ الْفَرَّاءُ فِي قَوْلِهِ تَعَالَى: وَمِنْ وَرائِهِمْ بَرْزَخٌ إِلى يَوْمِ يُبْعَثُونَ
قَالَ: البَرْزَخُ مِنْ يَوْمِ يَمُوتُ إِلى يَوْمِ يُبْعَثُ (لسان العرب-3/908)
روى هناد بن السري قال حدثنا محمد بن فضيل، ووكيع عن فطر قال سألت مجاهداً عن قول الله تعالى: {ومن ورائهم برزخ إلى يوم يبعثون} قال هو مابين الموت والبعث.
وقيل للشعبي: مات فلان.قال: ليس هو في الدنيا ولا في الآخرة هو في برزخ، والبرزخ في كلام العرب الحاجز بين الشيئين.
ومن قوله تعالى: {وجعل بينهما برزخاً} أي: حاجزاً وكذلك هو في الآية من وقت الموت إلى البعث فمن مات فقد دخل في البرزخ وقوله تعالى: {ومن ورائهم برزخ} أي من أمامهم وبين أيديهم. (تذكرة للقرطبى-157)
وفى شرح الصدور- قَالَ الْعلمَاء عَذَاب الْقَبْر هُوَ عَذَاب البرزخ أضيف إِلَى الْقَبْر لِأَنَّهُ الْغَالِب وَإِلَّا فَكل ميت وَإِذا أَرَادَ الله تَعَالَى تعذيبه ناله مَا أَرَادَ بِهِ قبر أَو لم يقبر وَلَو صلب أَو غرق فِي الْبَحْر أَو أَكلته الدَّوَابّ أَو حرق حَتَّى صَار رَمَادا أَو ذري فِي الرّيح وَمحله الرّوح وَالْبدن جَمِيعًا بِاتِّفَاق أهل السّنة وَكَذَا القَوْل فِي النَّعيم (شرح الصدور، رقم-73، صفحة-164)
فاما سؤال منكر ونكير فقال اهل السنة أنه يكون لكل ميت سواء كان فى قبره او فى يطون الوحوش أو الطيور أو مهاب الريح بعد أن أحرق وذرى فى الريح، (اليواقيت والجواهر فى بيان عقائد الاكابير-2/137)
أن الغريق فى الماء او الماكول فى بطون الحيوانات او المصلوب فى الهواء يعذب وان لم تطلع عليه، (نبراس-210)

বরযখী জীবনের সূচনাতেই ব্যক্তির উপর আরাম বা শাস্তির সূচনা হয়ে থাকে। আর এ আরাম ও শাস্তি ব্যক্তির দেহ ও রূহ উভয়ের উপরই হয়ে থাকে। এ বিষয়ে একাধিক নছ রয়েছে।
عَنْ أَنَسِ بْنِ مَالِكٍ رَضِيَ اللَّهُ عَنْهُ، أَنَّهُ حَدَّثَهُمْ: أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ: ” إِنَّ العَبْدَ إِذَا وُضِعَ فِي قَبْرِهِ وَتَوَلَّى عَنْهُ أَصْحَابُهُ، وَإِنَّهُ [ص:99] لَيَسْمَعُ قَرْعَ نِعَالِهِمْ، أَتَاهُ مَلَكَانِ فَيُقْعِدَانِهِ، فَيَقُولاَنِ: مَا كُنْتَ تَقُولُ فِي هَذَا الرَّجُلِ لِمُحَمَّدٍ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ، فَأَمَّا المُؤْمِنُ، فَيَقُولُ: أَشْهَدُ أَنَّهُ عَبْدُ اللَّهِ وَرَسُولُهُ، فَيُقَالُ لَهُ: انْظُرْ إِلَى مَقْعَدِكَ مِنَ النَّارِ قَدْ أَبْدَلَكَ اللَّهُ بِهِ مَقْعَدًا مِنَ الجَنَّةِ، فَيَرَاهُمَا جَمِيعًا – قَالَ قَتَادَةُ: وَذُكِرَ لَنَا: أَنَّهُ يُفْسَحُ لَهُ فِي قَبْرِهِ، ثُمَّ رَجَعَ إِلَى حَدِيثِ أَنَسٍ – قَالَ: وَأَمَّا المُنَافِقُ وَالكَافِرُ فَيُقَالُ لَهُ: مَا كُنْتَ تَقُولُ فِي هَذَا الرَّجُلِ؟ فَيَقُولُ: لاَ أَدْرِي كُنْتُ أَقُولُ مَا يَقُولُ النَّاسُ، فَيُقَالُ: لاَ دَرَيْتَ وَلاَ تَلَيْتَ، وَيُضْرَبُ بِمَطَارِقَ مِنْ حَدِيدٍ ضَرْبَةً، فَيَصِيحُ صَيْحَةً يَسْمَعُهَا مَنْ يَلِيهِ غَيْرَ الثَّقَلَيْنِ ” (صحيح البخارى، رقم الحديث-1374، 1308)
اتفق أهل الحق على أن الله يعيد إلى الميت في القبر نوع حياة قدر ما يتألم ويتلذذ ويشهد بذلك الكتاب والأخبار والآثار ولكن توقفوا في أنه هل يعاد الروح إليه أم لا وما يتوهم من امتناع الحياة بدون الروح ممنوع وإنما ذلك في الحياة الكاملة التي يكون معها القدرة والأفعال الاختيارية وقد اتفقوا على أن الله تعالى لم يخلق في الميت القدرة والأفعال الاختيارية فلهذا لا يعرف حياته كمن أصابته سكتة (شرح المقاصد-3/366)
الا ترى ان النائم يخرج روحه ويكون روحه متصلة لجسده حتى يتألم فى المنام ويتنعم؟ (شرح فقه الاكبر-101)
والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী
MD. Rasel Rana

MD. Rasel Rana

Blogger দ্বারা পরিচালিত.