Breaking News
recent

ঠোঁটের যত্নে

 
ঠোঁট ফাটা রুখতে নিয়মিত লিপজেল ব্যবহার করতে হবে। মডেল: মাশিয়াত, ছবি: নকশামুখের সবচেয়ে স্পর্শকাতর অংশ হলো ঠোঁট। কারণ, ঠোঁটের ত্বকে কোনো তেল গ্রন্থি (অয়েল গ্ল্যান্ড) না থাকায় এটা বেশি শুষ্ক দেখায়। কথিত আছে, প্রাচীন গ্রিক পুরাণে সৌন্দর্য এবং প্রেমের দেবী আফ্রোদিতির ঠোঁট ছিল একেবারে রক্তিম গোলাপের মতো। আর এমন ঠোঁট পাওয়ার জন্যই গ্রিক রমণীরা মধু, গোলাপ, জলপাইয়ের তেল ব্যবহার করত। এদিকে রোমান নগরীতে ঠোঁটের কালচে দাগ দূর করতে লিপস্টিক হিসেবে ব্যবহার হতো লাল রঙের মাটি৷ প্রাচীন এই উপাদানগুলো ব্যবহারের পাশাপাশি ঠোঁটের চর্চায় এখন যুক্ত হচ্ছে নিত্যনতুন উপাদানের ব্যবহার৷
ঠোঁটের যত্নে একাল
রেড বিউটি স্যালনের রূপবিশেষজ্ঞ আফরোজা পারভীন বললেন, ‘শীতকালে আর্দ্রতা একেবারেই কমে যায় বলে ঠোঁট বারবার শুষ্ক হয়ে পড়ে। আবার অনেকেরই বছরের যেকোনো সময় ঠোঁট ফেটে যাওয়ার সমস্যা দেখা দেয়। শুধু শুষ্ক ত্বকেই নয় তৈলাক্ত ত্বকেও এ সমস্যা দেখা দিতে পারে৷ এ ছাড়া অনেক সময় রোদে পুড়েও কালচে হয়ে পড়ে ঠোঁট।’
ঠোঁটের কালচে দাগ দূর করার উপায়
এ ছাড়া ঘরোয়া উপায়ে ঠোঁটের কালচে দাগ দূর হবে এমন কিছু প্যাক ব্যবহারের পরামর্শ দিলেন আফরোজা পারভীন৷
*   ১ টেবিল চামচ গোলাপজলের সঙ্গে ১ চা-চামচ মধু মিশিয়ে পেস্ট আকারে ব্যবহার করুন। ১০ মিনিট রেখে কুসুম গরম পানি দিয়ে ধুয়ে নিন।
*   ত্বকের যেকোনো কালচে দাগ দূর করতে শসার রস খুবই উপকারী। এ ক্ষেত্রে ২ টেবিল চামচ শসার রসের সঙ্গে ১ চা-চামচ গ্লিসারিন মিশিয়ে স্ক্রাবিং করতে পারেন৷
*   পাকা কলা ও সমপরিমাণ টক দই মিশিয়ে ঠোঁটে ব্যবহার করলে কালচে দাগ সহজেই দূর হবে।
এগুলো ছাড়াও লেবু, আলু কিংবা আমন্ড অয়েল ব্যবহারেও কালচে দাগ দূর করা যায়।
বিশেষজ্ঞের পরামর্শ
যা করতে হবে
*   ঠোঁটের শুষ্কতা রোধে পেট্রোলিয়াম জেলি, লিপবাম কিংবা কোল্ড ক্রিম ব্যবহার করতে পারেন। বিশেষ করে রাতে ঘুমানোর আগে লিপজেল ব্যবহারে বেশি উপকারিতা পাওয়া যায়। এ ছাড়া প্রাকৃতিক উপাদান হিসেবে নারিকেল তেল, অলিভ অয়েল কিংবা ক্যাস্টর অয়েলও খুব উপকারী।
*   ভালো ব্র্যান্ডের লিপস্টিক ব্যবহার করুন। যাঁদের শুষ্কতার সমস্যা বেশি, তাঁদের ক্ষেত্রে ম্যাট বা ড্রাই লিপস্টিক বা লিপগ্লস ব্যবহার না করাই ভালো। আর লিপস্টিক দীর্ঘক্ষণ রাখার পর মেকআপ কিট দিয়ে তুলে ফেলুন।
*   রোদ থেকে সুরক্ষার জন্য সানস্ক্রিনসমৃদ্ধ লিপবাম ব্যবহার করতে পারেন। কেনার সময় জেনে নিন কতক্ষণ এর কার্যকারিতা থাকে।
*   প্রচুর পরিমাণে পানি পান করুন। এতে ঠোঁটের কোমল ভাব বজায় থাকবে।
যা করবেন না
*   ত্বক পরিষ্কার করার সময় খেয়াল রাখুন যাতে ফেসওয়াশ কিংবা সাবান আপনার ঠোঁটে লেগে না থাকে। এগুলো ঠোঁটের কোমল ভাব নষ্ট করে।
*   অনেকেরই দাঁত দিয়ে ঠোঁট কিংবা নখ কাঁটার অভ্যাস থাকে৷ এটি খুবই ক্ষতিকর। কেননা এতে ঠোঁটের প্রাকৃতিক আর্দ্রতা শুকিয়ে যায়।
*   কখনো লিপস্টিক লাগানো অবস্থায় ঘুমাতে যাওয়া ঠিক নয়। এমনকি দীর্ঘক্ষণ ঠোঁটে প্রসাধনী ব্যবহার না করাই ভালো।
* গ্রন্থনা: নাদিয়া নাহরিন
..
MD. Rasel Rana

MD. Rasel Rana

Blogger দ্বারা পরিচালিত.