Breaking News
recent

সুন্নত ইতিকাফে বসলে গোসল করা যায় না?

Image result for islamic picture
প্রশ্ন
From: মোঃ দেলোয়ার হোসেন
বিষয়ঃ ইতকাফের সময় গোসলের ব্যাপারে উক্ত বিষয়টি আমি বুজতে পারিনি।
আস সালামু আলাইকুম।
জনাব,
ইতকাফের সময় গোসলের ব্যাপারে উক্ত বিষয়টি আমি বুজতে পারিনি।
এক ব্যক্তি রমযানের শেষ দশকে ইতেকাফ করেছিল। তিন দিন পর তিনি অযু ইস্তেঞ্জার প্রয়োজন ছাড়া শুধু সাধারণ গোসলের জন্য মসজিদ থেকে বের হন এবং মসজিদের অযুখানায় গোসল করেন। জানার বিষয় হল, ইতিকাফ অবস্থায় সাধারণ গোসলের জন্য মসজিদ থেকে বের হওয়া জায়েয আছে কি না? বের হলে ইতিকাফ নষ্ট হবে কি না?
উত্তর:
রমযান মাসের শেষ দশকের ইতিকাফ অবস্থায় সাধারণ গোসলের জন্য মসজিদ থেকে বের হওয়া জায়েয নয়। বের হলে ইতিকাফ নষ্ট হয়ে যাবে। সুতরাং প্রশ্নোক্ত ব্যক্তি সাধারণ গোসলের জন্য মসজিদ থেকে বের হওয়ার কারণে তার সুন্নত ইতিকাফ নষ্ট হয়ে গেছে। যেদিন গোসলের জন্য বের হয়েছে ঐ দিনের ইতিকাফ কাযা করে নেওয়া জরুরি। আর এই ইতিকাফটি নফল ইতিকাফ হিসাবে গন্য হবে।
-মারাকিল ফালাহ ৩৮৩; ফাতাওয়া খানিয়া ১/২২৩; খুলাসাতুল ফাতাওয়া ১/২৬৮; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/২১২
আমার প্রশ্নঃ এখানে দেখলাম ইতিকাফে বসলে  সাধারন গোসল করার জন্য বের হতে পারবেনা তার মানে ইত্তেকাফে বসলে গোসল করা যাবে না?
উত্তর
وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته
بسم الله الرحمن الرحيم
ইতিকাফ অবস্থায় আবশ্যকীয় প্রয়োজন ছাড়া মসজিদ থেকে বের হলেই ইতিকাফ বিনষ্ট হয়ে যাবে।
আবশ্যকীয় প্রয়োজনের অন্তর্ভূক্ত হল, ফরজ গোসল, পেশাব পায়খানায় গমণ এবং বাড়ি থেকে খানা আনার মানুষ না থাকলে বাসায় গিয়ে খানা খেয়ে আসা বা খানা নিয়ে আসা। এক্ষেত্রে রাস্তায় দেরী করা যাবে না। বাসায় গিয়ে বসে খানা খাওয়া ছাড়া অহেতুক বসে থাকা যাবে না।
সুতরাং ফরজ গোসল ছাড়া সাধারণ গোসলের জন্যও ইতিকাফ অবস্থায় বের হওয়া নিষেধ।
হ্যাঁ, মুফতীয়ানে কেরাম একটি সূরত বলেছেন, সেটি হল এই যে, গোসল খানায় আগে থেকে কাউকে দিয়ে পানি ভরে রাখবে, তারপর ইস্তিঞ্জার জন্য বের হবে, ইস্তিঞ্জা শেষ করে অজু করার সময় দ্রুত গায়ে কিছু পানি ঢেলে চলে আসবে। এতে করে ইতিকাফ ভাঙ্গবে না। তবে গোসল করতে গিয়ে দেরী করবে না।

أَنَّ عَائِشَةَ رَضِيَ اللَّهُ عَنْهَا – زَوْجَ النَّبِيِّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ – قَالَتْ: وَإِنْ كَانَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ «لَيُدْخِلُ عَلَيَّ رَأْسَهُ وَهُوَ فِي المَسْجِدِ، فَأُرَجِّلُهُ، وَكَانَ لاَ يَدْخُلُ البَيْتَ إِلَّا لِحَاجَةٍ إِذَا كَانَ مُعْتَكِفًا»
আম্মাজান আয়শা রাঃ বলেন, রাসূল সাঃ মসজিদে থাকা অবস্থায় আমার দিকে মাথা বাড়িয়ে দিতেন আর আমি তা আঁচড়িয়ে দিতাম এবং তিনি যখন ইতিকাফে থাকতেন, তখন [প্রাকৃতিক] প্রয়োজন ছাড়া ঘরে প্রবেশ করতেন না। {বুখারী, হাদীস নং-২০২৯, ১৯২৫, ১৯০২}
والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী
MD. Rasel Rana

MD. Rasel Rana

Blogger দ্বারা পরিচালিত.